সংস্করণ: ২.০১

স্বত্ত্ব ২০১৪ - ২০১৭ কালার টকিঙ লিমিটেড

547-800 copy.jpg

স্বাস্থ্যগুণ গাঁদা ফুলের একগুচ্ছ উপকারিতা

গবেষণায় দেখা গেছে, গাঁদা ফুল ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি ও বিস্তার কমিয়ে দেয় এবং স্তন ক্যান্সার, প্রোস্টেট ক্যান্সার, কোলন ক্যান্সার, ত্বকের ক্যান্সার ও লিউকোমিয়া প্রতিরোধে ভাল কাজ করে।

গাঁদা ফুল বাংলাদেশের অতি পরিচিত ফুলগুলোর মধ্যে একটি। অনেকেই শখ করে বাগানে গাঁদা ফুলের গাছ লাগিয়ে থাকেন। গাঁদা ফুলের ব্যবহারের পাশাপাশি উপকারিতাও অনেক। আসুন দেখে নিই, গাঁদা ফুল আমাদের কি কি উপকার করে থাকে।

ব্যাকটেরিয়াবিরোধী: উত্তম ব্যাকটেরিয়ারোধী হিসেবে গাঁদা ফুলের প্রলেপ বা মলম ত্বকের ক্ষত, ফুসকুড়ি, শিরা ফুলে যাওয়া এবং পোড়া ত্বক সারিয়ে তুলতে ভাল কাজ করে।

প্রদাহবিরোধী: গাঁদা ফুল একজিমা ও এ্যালার্জিজনিত সংক্রমণ তথা ত্বকের সকল ধরণের সমস্যা দূরীকরণে ভাল কাজ করে।

ক্ষত সারানোয়: গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, গাঁদা ফুল রক্তনালী ও দেহকোষের পুনর্গঠনে সাহায্য করে। ফলে ক্ষত সারানোর প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত হয়।

ভিটামিন সি এবং এ্যান্টিঅক্সিডেন্ট: গাঁদা ফুল এবং এর থেকে তৈরীকৃত চা-তে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি ও শক্তিশালী এ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে যা হৃদযন্ত্রের সমস্যা এবং স্ট্রোক প্রতিরোধে সাহায্য করে।

আঁচিল নির্মূলে: গাঁদা ফুলের রস ত্বকের আঁচিল দূর করতে সাহায্য করে।

তৈলাক্ত ত্বকে: তৈলাক্ত ত্বকে ব্রণ ও অন্যান্য সমস্যার জন্য গাঁদা ফুলের পেস্ট লাগালে অনেক উপকার পাওয়া যায়।

চোখের সমস্যায়: গাঁদা ফুল থেকে তৈরীকৃত চা-তে প্রচুর পরিমাণে এ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যেমন, লুটেনিন, জিয়াজানথিন এবং লাইকোপিন থাকায় এটি অন্ধত্ব, ছানি পড়া এবং চোখের অন্যান্য রোগের প্রতিরোধে সাহায্য করে।

ক্যান্সার: গাঁদা ফুলের চা-এ বিপুল পরিমাণ লাইকোপিন আছে যা প্রোস্টেট গ্রন্থির সুরক্ষায় এবং ক্যান্সার প্রতিরোধে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গবেষণায় দেখা গেছে, গাঁদা ফুল ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি ও বিস্তার কমিয়ে দেয় এবং স্তন ক্যান্সার, প্রোস্টেট ক্যান্সার, কোলন ক্যান্সার, ত্বকের ক্যান্সার ও লিউকোমিয়া প্রতিরোধে ভাল কাজ করে।

আলসার: গাঁদা ফুলের চা গ্যাস্ট্রিক আলসার বা পাকস্হলীর ক্ষত নিরাময়ে সাহায্য করে।

বিলম্বিত বার্ধক্য: গাঁদা ফুলের চা বার্ধক্যকরণ প্রক্রিয়া বিলম্বিত করে।

বিষাক্ত পদার্থ দূরীকরণে: গাঁদা ফুলের চা দেহ থেকে বিষাক্ত পদার্থ দূরীকরণে সাহায্য করে।

আর্থ্রাইটিস চিকিৎসায়: আর্থ্রাইটিস বা গেঁটেবাত চিকিৎসায় গাঁদা ফুলের চা ও তেল অনেক কার্যকরী।

খুশকি দূরীকরণে: গাঁদা ফুলের চা দিয়ে চুল ধুয়ে নিলে খুশকি দূর হয়।

জ্বর ও ঠাণ্ডায়: জ্বর, কাশি ও ঠাণ্ডা লাগার চিকিৎসায় গাঁদা ফুলের চা ব্যবহৃত হয়।

তাহলে দেখলেন তো কেবল বাগানের সৌন্দর্য বৃদ্ধি আর হলুদের অলংকার নয়, স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও গাঁদা ফুলের জুড়ি নেই। 
এখানে প্রকাশিত প্রতিটি লেখার স্বত্ত্ব ও দায় লেখক কর্তৃক সংরক্ষিত। আমাদের সম্পাদনা পরিষদ প্রতিনিয়ত চেষ্টা করে এখানে যেন নির্ভুল, মৌলিক এবং গ্রহণযোগ্য বিষয়াদি প্রকাশিত হয়। তারপরও সার্বিক চর্চার উন্নয়নে আপনাদের সহযোগীতা একান্ত কাম্য। যদি কোনো নকল লেখা দেখে থাকেন অথবা কোনো বিষয় আপনার কাছে অগ্রহণযোগ্য মনে হয়ে থাকে, অনুগ্রহ করে আমাদের কাছে বিস্তারিত লিখুন।

গাঁদা-ফুল, স্বাস্থ্যগুণ, ব্যাকটেরিয়াবিরোধী, একজিমা, তৈলাক্ত-ত্বক, আলসার, ক্যান্সার